বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০৩:৩৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
ঘড়িষার ইউনিয়ন বাসীকে মাহমুদুল হাসান মাসুমের পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা একে ডিজিটাল প্রিন্টিং হাউজের পক্ষ থেকে সকলকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা শরীয়তপুর পৌরসভা বাসীকে অতনু ঘটক চৌধুরীর পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা কে এম দাস লেন ছাত্র সংগঠনের পক্ষ থেকে সকলকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা সখিপুর বাসীকে ইমরান বেপারীর পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জাজিরায় আব্দুল আলীম বেপারীর উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ঈদ উপহার প্রদান জাতীয় পার্টির যুগ্ম-মহাসচিব এ্যাড. শাহিদা রহমান রিংকু’র পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা এস. আর মাল্টিমিডিয়া প্রোডাকশন হাউজের কর্ণধার এ্যাড. শাহিদা রহমান রিংকু’র পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা সকলকে সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র হেলেন আক্তারের পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা একমাত্র শেখ হাসিনা ও আওয়ামীলীগই দূর্যোগে মানুষের পাশে থাকে : এনামুল হক শামীম
সাংবাদিকতায় তরমুজ উপহার: এস এম. জহিরুল

সাংবাদিকতায় তরমুজ উপহার: এস এম. জহিরুল

সাংবাদিকতায় তরমুজ উপহার: এস এম, জহিরুল

ইসলাম ১৯৯৪ সালের এমন সময়টাই হবে। আমি সাংবাদিক হিসাবে বরিশালের মুলাদীতে আলোচনায় উঠে এসেছি। তখন সর্বহারা বিরোধী রিপোর্টই আমাকে পরিচিত করতে সহায়তা করছে বেশী।
একদিন কাজিরচরের শশুর বাড়ীতে অবস্থান করছিলাম। হঠাৎ আমার এক নিকট আত্বীয়র সাথে অচেনা একটি লোক আমাকে খুঁজতে আমার শশুর বাড়ী এসে হাজির। বিষয়টি জানতে চাইলে সে বলল, জামাই আপনাকে এক সপ্তাহ ধরে খুঁজেও পাইনি। আমি মহাবিপদে আছি। আমাকে বাঁচান। আমি মুল বিষয়টি জানতে চাইলে সে বলল, তার একটি মেয়ে বয়স ৭ বছর হবে। তাদের বাড়ী বাবুগঞ্জ উপজেলার কেদারপুর গ্রামে। সেখান থেকে হারিয়ে গেছে প্রায় ১ মাস। এখনও ফিরে আসেনি। আপনি একটু পত্রিকায় লিখে দিন আর রেডিওতে বলতে বলেন। এই কথা বলেই হাউমাউ কান্না। আমি কি করব ভেবে পাই না। উপায় না দেখে তার মেয়ের নামসহ বিস্তারিত তথ্য নিলাম। তখন মেয়ের ছবি তো আর পাওয়ার কথা না।
জরুরী সংবাদের জন্য সরাসরি বরিশাল যাওয়া ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না। মানবিক কারনেই বরিশাল চলে গেলাম।
দৈনিক বিপ্লবী বাংলাদেশ পত্রিকার সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আলম ফরিদকে ঘটনাটি খুলে বললাম। তিনি পত্রিকার ঐ সময়কার চীফ রিপোর্টার কাজী মকবুল ভাইকে বিষয়টি দেখার দায়িত্ব দিলেন।
কাজী মকবুল সুন্দর করে সংবাদটি লিখে বরিশালের সব কাগজ এবং জাতীয় পত্রিকার জেলা প্রতিনিধিদের মাধ্যমে ঢাকার পত্রিকাসহ খুলনা থেকে প্রকাশিত পত্রিকায় প্রকাশের ব্যাবস্থা করে দিলেন।
তখন মোবাইল বা আধুনিক টিএন্ডটি ফোন ছিল না। ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে স্টেশনের মাধ্যমে ফোন করতে হত। সে ভাবেই অনেক কস্ট করলেন কাজী মকবুল ভাই। তার বন্ধু বাংলাদেশ বেতারের সংবাদদাতা। তাকে দিয়ে বেতারে প্রচারেরও ব্যাবস্থা করে দিলেন।
শ্রদ্ধাভাজন সম্পাদক ও চীফ রিপোর্টার শুধু বলল, তোমার আগ্রহ আর বলার আবেকের কারনে আমরা বিষয়টি এ ভাবে করলাম। না হয় শুধু আমাদের পত্রিকায় ছাপালেই পারতাম। কারন আমি ছিলাম দৈনিক বিপ্লবী বাংলাদেশ পত্রিকার মুলাদী উপজেলা প্রতিনিধি।
আমি বিকালে শশুর বাড়ী চলে এলাম। ঐ দিকে কি হল তা আর তেমন কিছু জানতে পারলাম না। তবে একজনের মারফত জানতে পারলাম সংবাদটি বাংলাদেশ বেতারে প্রচারিত হয়েছে।
এর মধ্যে সপ্তাহখানেক নিজ বাড়ীতে থাকার পর আবার শশুর বাড়ী গেলাম। ঘুম থেকে উঠতেই দেখলাম আমার বউয়ের বড় ভাই শামীমের সাথে সেই লোকটি বাড়ীতে আমাকে দোয়া করতে করতে ঢুকছে। মাথায় বিরাট একটা তরমুজ। হাউমাউ করে কেঁদে বলল, সাংবাদিক জামাই আপনার কারনে আমার হারানো মেয়েটাকে খুঁজে পেয়েছি। একজন লোক রেডিওতে শুনে মেয়েকে তার বাড়ীতে পৌঁছে দিয়েছে। আমরাও খুশির খবরটি পেয়ে আনন্দ পেলাম। সবাই মিলে তাকে নিয়ে তরমুজটি খেলাম।
কিছু দিন পর তার অনুরোধে একদিন তার বাড়ীতে স্ব-পরিবারে বেড়াতে গিয়ে মেয়েটাকে দেখে এলাম।

সংবাদটি পছন্দ হলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019 Lalsabujnews24.Com
Desing & Developed BY Kazi Jahir Uddin Titas::01713478536